মায়ের মন ভালো করার উপায়

0

একদিন বাসায় ফিরে দেখলেন, মায়ের মুখটা ভার। অন্য দিন কেন ফিরতে দেরি হলো বলে কান ঝালাপালা করে দেন। কিন্তু আজ ভাবলেশহীন। বুদ্ধি থাকলে বুঝতে অসুবিধা হওয়ার কথা নয়—মায়ের মন খারাপ। সন্তানেরা বেশির ভাগ সময় মনে করেন, মন খারাপ শুধু তাঁদেরই হয়। মায়েরও যে মন খারাপ হতে পারে, সেটি অনেক সময় তাঁরা ভুলে যান। ফলে এটা অস্বাভাবিক মনে হয় তাঁদের কাছে। কী করে উঠবেন বেশির ভাগ সময় বুঝতে পারেন না। যদি সন্তানের কারণে ভুল হয়ে থাকে, তবে কোনো কথা না বলে আগে ‘স্যরি’ বলে ফেলুন। আপনি যা করেছেন, ঠিক করেননি সেটি বুঝিয়ে বলুন। এমনও হতে পারে, সন্তান হিসেবে আপনি যা করেছেন, সেটিই হয়তো ঠিক। মা হয়তো ভুল বুঝেছেন। তাহলেও আগে স্যরি বলে তাঁর বোঝার কোথায় ভুল আছে, ধীরে ধীরে বলুন। সময় দিন তাঁকে ভাববার। মা তো, ঠিকই বুঝবেন। সন্তানের ভালো থাকা তাঁর কাছে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব পায়।

মায়ের মন খারাপ হলে যা করা যায়
আপনার অজান্তে কোনো আচরণে মা কষ্ট পেয়েছেন কি না জানার চেষ্টা করুন। সন্তান হিসেবে আপনি যদি কিছু করে না থাকেন, তাহলে খোঁজ নিন অন্য কিছু হয়েছে কি না। মায়ের জন্য এক কাপ চা বানিয়ে তাঁর পাশে বসুন। হাতের ওপর হাত রেখে কোমল গলায় বলুন—কী হয়েছে মা, আমাকে বলা যায়? আপনি যে মায়ের প্রতি বাড়তি মনোযোগ দিচ্ছেন, তাতে তাঁর মন কিছুটা হলেও ভালো হবে।

সচরাচর আপনি যে কাজটি করেন না, মাকে খুশি করতে একদিন তা করতে পারেন। মা চান, আপনার ঘরটা গুছিয়ে রাখবেন। নিজের খাবারের প্লেট নিজে ধুবেন। সকালে তাড়াতাড়ি ঘুম থেকে উঠবেন। এসব করে ভড়কে দিতে পারেন মাকে। মন ভালো হতে বাধ্য।

মায়ের পছন্দের কোনো জায়গা থাকলে তাঁকে নিয়ে ঘুরতে যেতে পারেন। কখনো সংসারের চাপে কোথাও যাননি। খুব দূরে কোথাও যেতে না পারলে আশপাশে কোথাও ঘুরতে যান। মায়ের নিজের শহর, গ্রাম বা আত্মীয়ের বাড়ি। যেখানে হয়তো অনেক দিন থেকে তাঁর যাওয়ার ইচ্ছা। চলে যান মাকে নিয়ে। হাওয়া বদল দরকার পড়ে মাঝে মাঝে।

বাড়িতেও চাইলে মায়ের বন্ধু বা কাছের আত্মীয়দের ডাকতে পারেন। তাঁদের সঙ্গে কিছুক্ষণ সময় কাটালে হয়তো তাঁর ভালো লাগবে।

কোনো কারণ ছাড়া মাকে নিয়ে বিপণিবিতানে যেতে পারেন। হাতে কোনো টাকা না থাকলে খুব ছোট্ট কিছু—যেমন ধরেন, একটি বেলি ফুলের মালা মাকে কিনে দিলেন।

সন্ধ্যায় কাজের ঝামেলা থাকলে সকালের নাশতা করার আগে একটু হাঁটতে পারেন। খোলা বাতাসে মন সতেজ হবে।

মাকে চিঠি বা ছোট্ট একটু চিরকুট লিখে চমকে দিতে পারেন। আপনি মাকে কত ভালোবাসেন, বোঝার চেষ্টা করেন। সেটা মা জানলে অবশ্যই খুশি হবেন।

আপনার যে আচরণগুলো ঠিক নয়, সংশোধনের প্রয়োজন আছে, সেগুলো ধীরে ধীরে ঠিক করার চেষ্টা করুন। তাহলে মায়ের ভালো লাগবে। কোনো কারণে মা ফোন দিয়েছেন, অহেতুক তাঁর ওপর রাগ না করে বুঝিয়ে বলুন।

সম্ভব হলে মায়ের জন্য পুরো একটি দিন বরাদ্দ রাখুন। যে দিনটি শুধু আপনাদের। সন্তানের সঙ্গ মাকে আনন্দ দেয়।

Share.

Leave A Reply