পাবনা হানাদার মুক্ত দিবস আজ

0

স্টাফ রিপোর্টার : আজ ১৮ ডিসেম্বর, মুক্তিযুদ্ধের ৭ নং সেক্টর পাবনা হানাদার মুক্ত দিবস। একাত্তরের ১৬ ডিসেম্বর দেশ শত্রুমুক্ত হলেও পাবনা হানাদার মুক্ত হয় এর দু’দিন পর।

১৮ ডিসেম্বর পাবনার দামাল মুক্তিযোদ্ধারা পাকিস্থানী হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসরদের পরাজিত করে কালেক্টরেট ভবনে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে পাবনাকে শত্রুমুক্ত করেন।

মুক্তিযোদ্ধারা জানান, একাত্তরের ৭ মার্চ রেসকোর্স ময়দানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তার ঐতিহাসিক ভাষনে স্বাধীনতার ডাক দিলে পাবনার আপামর জনতা দেশকে স্বাধীন করতে প্রস্তুতি গ্রহণ করেন। ২৭ ও ২৮ মার্চ দুইদিনব্যাপী তুমুল যুদ্ধে ২৮ জন পাকিস্থানী বর্বর সেনা নিহত হয়। ৩০ মার্চ পাকিস্থানী হানাদার বাহিনী’র ১৮০ জন সদস্য সড়ক পথে পাবনা-পাকশী সড়কের দাশুড়িয়া নামক স্থান দিয়ে পালানোর সময় মুক্তিকামী জনতা তাদের উপর গেরিলা হামলা চালালে সকল পাক সৈন্য নিহত হয়। ১৪ ডিসেম্বর পাকিস্থানী হানাদার বাহিনী পাবনায় বিমান হামলা চালালে ১৬ ডিসেম্বর মুক্তিযোদ্ধারা পাকবাহিনীর বিরুদ্ধে ত্রিমুখী পজিশন নিয়ে ব্যাপক হামলা চালায়। দুইদিন একটানা তুমুল যুদ্ধের পর পাক বাহিনী পাবনা ছেড়ে পালিয়ে গেলে ১৮ ডিসেম্বর পাবনা শত্রুমুক্ত হয়।

বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শনের নিদর্শন হিসেবে যুদ্ধের ২৮ বছর পর ১৯৯৮ সালে কালেক্টরেট ভবনের সামনে ‘দূর্জয় পাবনা’ নামে একটি মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিসৌধ নির্মান করা হয়। এদিকে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে জেলার মুক্তিবাহিনী ও মুজিব বাহিনীর প্রধান মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম বকুলের প্রতি শ্রদ্ধায় পাবনা পৌর মিলনায়তনকে ‘বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম বকুল পৌর মিলনায়তন’ নামকরণএবং শহরের মুক্তিযোদ্ধা মার্কেটের নাম মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক আব্দুর রব বগা মিয়ার নামে নামকরণ  করা হয়।

Share.

Leave A Reply