উৎসব আমেজে অর্থনীতি বিভাগের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত এডওয়ার্ডে

0

স্টাফ রিপোর্টার : উৎসব আমেজে এডওয়ার্ড কলেজের অর্থনীতি বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১৮৯৮ সালে প্রতিষ্ঠিত ১২১ বছরের পুরনো এই কলেজের অর্থনীতি বিভাগের এটিই ছিলো প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনীর প্রথম আয়োজন। আর গত ৭ জুনের এ অনুষ্ঠান ঘিরে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে থাকা বিভাগের এক হাজারেরও অধিক প্রাক্তন ছাত্র ছাত্রীদের উপস্থিতি ও তাদের প্রাণের উচ্ছাসে এক মিলন মেলায় রূপ নেয় তাদের প্রিয় ঠিকানা এডওয়ার্ডের চত্বর। ১৯৫৫ সালের যাত্রা শুরু করা এডওয়ার্ড কলেজের অনার্সের অর্থনীতি বিভাগকে নতুন রঙে সাজিয়েছিলো প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা। একে অপরকে জড়িয়ে ধরে খুনসুটি, মাস্তি আর আড্ডা গল্পে এক অন্য ধরনের পরিবেশ ছিলো দুটো দিন ঘিরে। ৬ জুন সন্ধ্যায় আতশবাজি, পটকাবাজি আর ফানুস উড়িয়ে আনন্দ প্রকাশের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা করেন তারা। পরদিন ৭ জুন সকাল সাড়ে আটটায় এব বর্ণাঢ্য র‌্যালী কলেজ থেকে শুরু হয়ে শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে জানান দেয় উৎসবের বারতা। দৃষ্টি নন্দন সাজে শৈল্পিং ভঙিমায় ছাত্র ছাত্রীদের র‌্যালীটি শহর পরিভ্রমনের সময়ে শহরবাসী হাত নেড়ে অভিনন্দিত করেন তাদের। র‌্যালী ঘুরে গিয়ে কলেজের শহীদ আব্দুস সাত্তার মিলনায়তনে পবিত্র কোরআন তেলওয়াতের মাধ্যমে শুরু হয় অনুষ্ঠান। এরপরে থিমসং পরিবেশন করা হয় সমস্বরে। পরে স্মৃতিচারনে আবেগ আপ্লুত হয়ে পুরনো সব আনন্দ ভাগাভাগির আলোচনায় অংশ নেন শিক্ষকবৃন্দ ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা। কলেজের অর্থনীতি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর বাহেজ উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে অতিথি থেকে বক্তব্য দেন কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. হুমায়ন কবির মজুমদার এবং উপাধ্যক্ষ প্রফেসর আহসান হাবিব। এছাড়াও বক্তব্য দেন অর্থনীতি বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষক প্রফেসর আলতাফ হোসেন, প্রফেসর শামসুন্নাহার, প্রফেসর আব্দুস সামাদ, প্রফেসর ড. মোস্তাফিজুর রহমান, প্রফেসর একরামুল হক প্রমূখ। স্বাগত বক্তব্য দেন পুনর্মিলনী কমিটির আহবায়ক রোটারিয়ান কে এম মতিউর রহমান হেলাল। প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের মাঝে স্মৃতিচারন করেন শামসুন্নাহার বর্না, সাবিহা তানোয়াজ ময়না, শহিদুল হক শাহিন, মাহমুদ হাসান খান সুমন, খোন্দকার আব্দুল ওয়াকিব বাবু, রবিউল ইসলাম বাবু, হাফিজুর রহমান, আবু নঈম, আব্দুল মান্নান, কামরুজ্জামান তুলিপ, তৌহিদ ইমাম পুলক প্রমূখ। অনুষ্ঠানে বিভাগের ৬ জন শিক্ষক যথাক্রমে প্রফেসর আলতাফ হোসেন, প্রফেসর শামসুন নাহার, প্রফেসর একরামুল হক, প্রফেসর আব্দুস সামাদ, প্রফেসর ড. মোস্তাফিজুর রহমান ও প্রফেসর আলেয়া বেগমকে সংবর্ধনা জানানো হয় আয়োজকদের পক্ষ থেকে। অনুষ্ঠান সঞ্চালন করেন পারভীন আশরাফি লিজা ও মাছুদুর রহমান। বিকালে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে শ্রোতামুগ্ধ পরিবেশনায় কলেজ মাঠ আনন্দিত করেন ডি জে রাহাত, সাইফ ইসলাম ও জ্যাক রিপন রিচার্ডের দল। এর আগে যাদু দেখিয়ে দর্শকদের মুগ্ধ করেন বিভাগের প্রাক্তন ছাত্র সিরাজুল ইসলাম রাসেল। দুদিনের অনুষ্ঠানমালার সার্বিক তত্বাবধায়নে ছিলেন বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষার্থী আশরাফুল হোসেন খান মিলন, রশিদুল ইসলাম তৌহিদ, আতাউর রহমান পলাশ, শামীম আক্তার সোহেল, আব্দুর রাজ্জাক, আব্দুল লতিফ, রফিকুল ইসলাম, সায়মা সাখাওয়াত, সজিব কুমার কুন্ডু, সুলতান হাফিজ এ মামুন, মোখলেছুর রহমান খান বিপ্লব প্রমূখ।

অর্থনীতি বিভাগের এই পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান ঘিরে প্রকাশিত হয়েছে আন্দ্রমিতা নামের ৫৮ পৃষ্টার একটি দৃষ্টিনন্দন স্যুভেনুর। র‌্যাফেল ড্র এর মাধ্যমে ভাগ্যবান ও ভাগ্যবতীরা পুরস্কৃতও হয়েছেন আয়োজকদের মাধ্যমে। এক কথায় অত্যন্ত প্রাণবন্ত ও আনন্দঘন ছিলো এডওয়ার্ড কলেজের অর্থনীতি বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনীর এই আয়োজন। অনুষ্ঠান শেষে বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষার্থী নাসরিন বানু  (সেশন ১৯৮৮-১৯৮৯) কে পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান ঘিরে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন “আমি সত্যিই অভিভুত, এটা আমার দেখা সবচেয়ে একটা সেরা অনুষ্ঠান। বিভাগের শিক্ষার্থীরা প্রমান করেছে তারা সকলে বিভাগ ঘিরে অনেক মমতার টানে তারা আজকেও সম্মিলিত। তবে বর্তমান বিভাগের শিক্ষকবৃন্দ ও এই অনুষ্ঠানের আয়োজকদের কাছে আমার প্রত্যাশা যেন প্রতি বছরই এমন ধরনের আয়োজন করেন। এর মাধ্যমে পরস্পরের প্রতি মায়া অনুভব এবং বিভাগের প্রতি একটা টানের জায়গার চর্চা থাকে। অপর শিক্ষার্থী মোনালিসা হায়দার লিজা (সেশন ১৯৮৬-১৯৮৭) বলেন অনেক বছর পরে তিনি পাবনা এসেছেন শুধু তার প্রিয় অর্থনীতি বিভাগের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে। প্রাণের টান তাকে আসতে বাধ্য করেছে। অনুষ্ঠানের সকল আয়োজন তাকে আনন্তি করেছে। বড় ছোট কিছুই মনে হয়নি কারো, শুধু মনে হয়েছে আমরা সকলেই যেন এই ভবনের বাসিন্দা। একই ছাদের মায়ার আনন্দ তাকে অনেকদিন মনি করিয়ে রাখবে অনেকদিন পরে দেখা এসব প্রিয় মুখগুলোকে। তিনিও বলেন এমন আয়োজন আসলে গঠনমূলক ও আনন্দমূখর। তিনি আয়োজকদের ধন্যবাদ জানান ও ভবিষ্যতেও এমনধারা অব্যাহত রাখার অনুরোধ জানান।00000

Share.

Leave A Reply