ক্যালিফোর্নিয়ার সিনাগগে গুলিতে নিহত ১, সন্দেহভাজন গ্রেপ্তার

0

এফএনএস আর্ন্তজাতিক: ক্যালিফোর্নিয়ার একটি সিনাগগে এক বন্দুকধারীর গুলিতে এক নারী নিহত ও আরও তিন জন আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

শনিবার সান ডিয়াগো শহরের পোওয়ে এলাকার এ ঘটনায় ১৯ বছর বয়সী এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, খবর বিবিসির।

ইহুদিদের বাৎসরিক পাসওভার পরব চলার সময় সিনাগগটিতে হামলা হয়।

কী কারণে এ হামলা সে বিষয়ে কিছু বলেনি পুলিশ, কিন্তু প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প হামলাটি ‘হেইট ক্রাইম হতে পারে’ বলে মন্তব্য করেছেন।

ছয় মাস আগে যুক্তরাষ্ট্রের পিটসবার্গের ট্রি অব লাইফ সিনাগগে বন্দুক হামলার আরেকটি ঘটনায় ১১ জন নিহত হয়েছিল। যুক্তরাষ্ট্রের সাম্প্রতিক সময়ের সবচেয়ে প্রাণঘাতী ইহুদিবিরোধী হামলা ছিল সেটি।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সন্দেহভাজনের কার্যকলাপ ও অনলাইনে প্রকাশ করা একটি খোলা চিঠি তদন্তকারীরা পরীক্ষা করে দেখছেন বলে জানিয়েছেন সান ডিয়াগোর কাউন্টি শেরিফ বিল গোর।

পরে কর্তৃপক্ষ ওই সন্দেহভাজনের নাম জন আর্নেস্ট বলে জানায়। গত মাসে একটি মসজিদে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় আর্নেস্টের বিরুদ্ধে তদন্ত চলছিল বলেও জানিয়েছে তারা।

শেরিফ গোর বলেছেন, “গুলিতে চার ব্যক্তি আহত হন এবং তাদের পালমার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে আহত একজন মারা যান। অন্য তিন জনের অবস্থা স্থিতিশীল আছে।”

সিনাগগটির রাবাইয়ের হাতে একটি গুলি লেগেছে বলে সান ডিয়াগোর মেয়র স্টিভ ভউস জানিয়েছেন।

“পাসওভারের শেষ দিকে ভয়ঙ্কর ইস্টারের এক সপ্তাহ পর এ ঘটনা ঘটল,” বলেছেন তিনি।

শেরিফ গোর জানিয়েছেন, স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ১১টার একটু আগে চাবাদ সিনাগগ থেকে কর্মকর্তাদের ডাকা হয়, এর আগে এক ব্যক্তি সেখানে ‘এআর-১৫ টাইপ’ আধাস্বয়ংক্রিয় রাইফেল দিয়ে গুলি করে।

তিনি জানান, সন্দেহভাজন একটি গাড়ি নিয়ে ঘটনাস্থল থেকে পালানোর সময় অফ-ডিউটিতে থাকা সীমান্ত টহল পুলিশের এক কর্মকর্তা তার দিকে গুলি ছোড়ে, কিন্তু গুলি আর্নেস্টের শরীরে লাগেনি।

“তিনি পরিষ্কারভাবে সন্দেহভাজনের গাড়িটি দেখতে পাচ্ছিলেন, সন্দেহভাজন হাত উপড়ে তুলে গাড়ি থেকে ঝাঁপিয়ে পড়ে, সঙ্গে সঙ্গে তাকে আটক করে হেফাজতে নেন তিনি।

“ওই কর্মকর্তা ১৯ বছর বয়সী ওই তরুণকে হেফাজতে নেওয়ার সময় সন্দেহভাজনের গাড়ির সামনের সিটে একটি রাইফেল দেখতে পান।”

হোয়াইট হাউসের সামনে এ ঘটনা নিয়ে কথা বলার সময় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তদের প্রতি ‘গভীর সহানুভূতি’ জানান।

তিনি বলেন, “এই মুহূর্তে এটিকে হেইট ক্রাইম বলে মনে হচ্ছে। যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তাদের প্রতি গভীর সহানুভূতি জানাচ্ছি, এই ঘটনার আদ্যোপান্ত বের করবো আমরা।”

যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স ‘অশুভ ও কাপুরুষোচিত’ গুলিবর্ষণের নিন্দা করেছেন।

ডেমোক্রেট কংগ্রেসওম্যান আলেকজান্দ্রিয়া ওকাসিও-কোর্তেজ এই সংবাদে ‘মর্মাহত’ হয়েছেন বলে এক টুইটে জানিয়েছেন।

01-

Share.

Leave A Reply