সন্ত্রাসবাদের অভিযোগ: সৌদি আরবে ৩৭ বন্দির মৃত্যুদ- কার্যকর

0

এফএনএস ডেস্ক: সৌদি আরব সন্ত্রাসবাদ সংক্রান্ত অপরাধে জড়িত ৩৭ বন্দির মৃত্যুদ- কার্যকর করেছে বলে জানিয়েছে দেশটির রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম। গত মঙ্গলবার এসব বন্দির দ- কার্যকর হয় এবং এরা সবাই সৌদি নাগরিক বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। ৩৭ বন্দির মধ্যে একজনের মৃত্যুদ- কার্যকরের পর ক্রুশবিদ্ধও করা হয়েছে। যাদের দ- কার্যকর হয়েছে তারা ‘সন্ত্রাসবাদী ও উগ্রবাদী ধ্যানধারণা গ্রহণ, সন্ত্রাসী সেল গঠন’ এবং ‘সামাজিক নিরাপত্তা ও শান্তি বিঘেœর’ দায়ে অভিযুক্ত হয়েছিলেন বলে সৌদি রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমের বরাতে জানিয়েছে বিবিসি।

মধ্যপ্রাচ্যের এ দেশটিতে সাধারণত শিরñেদের মাধ্যমেই মৃত্যুদ- কার্যকর হয়। কর্তৃপক্ষের দৃষ্টিতে ভয়াবহ গুরুতর অপরাধের সঙ্গে জড়িতদেরই কেবল মৃত্যুদ-ের পর ক্রুশবিদ্ধ করা হয়। ছুরিকাঘাতে এক নারীকে হত্যার দায়ে অভিযুক্ত এক অপরাধীকে গত বছর শিরñেদের পর ক্রুশে বেঁধে রাখা হয়েছিল। ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে একজনকে হত্যাচেষ্টা ও এক নারীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগও ছিল বলে ব্লুমবার্গের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে। গত মঙ্গলবার যে বন্দিদের মৃত্যুদ- কার্যকর করা হয়েছে, তাদের মধ্যে একজনকে মাত্র ১৬ বছর বয়সে আটক করা হয়েছিল বলে জানিয়েছে মানবাধিকার বিষয়ক আন্তর্জাতিক সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। মৃত্যুদ-প্রাপ্তদের মধ্যে অন্তত ১৪জন সরকারবিরোধী কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে সহিংস অপরাধে জড়িত থাকার অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত হয়েছিলেন বলে অ্যামনেস্টির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

সৌদি বার্তা সংস্থা বলছে, নিরাপত্তা বাহিনীর সদরদপ্তরে হামলা, কর্মকর্তাদের হত্যার দায়ে অভিযুক্তদেরও মৃত্যুদ- গত মঙ্গলবার কার্যকর করা হয়। রাজধানী রিয়াদের পাশাপাশি মক্কা ও মদিনাসহ বেশ কয়েকটি জায়গায় এসব সাজা কার্যকর করা হয়েছে। কত জনের মৃত্যুদ- কার্যকর হয়েছে এ-সংক্রান্ত তথ্য সৌদি সরকার প্রকাশ না করলেও রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমে নিয়মিতই দ- কার্যকরের খবর পাওয়া যায়। এ নিয়ে চলতি বছর দেশটিতে মোট ১০৪ জনের মৃত্যুদ- কার্যকর হল বলে জানিয়েছে অ্যামনেস্টি। পুরো ২০১৮ সালে এ সংখ্যা ছিল ১৪৯।

রিয়াদের উত্তরে আল-জুলফিতে রোববার একটি নিরাপত্তা ব্যুরো লক্ষ্য করে সন্ত্রাসীদের হামলা ব্যর্থ করে দেয়ারও দাবি করেছে সৌদি আরব। হামলাকারী চারজনকে হত্যা করা হয়েছে বলে দেশটির স্টেট সিকিউরিটি প্রেসিডেন্সি কার্যালয়ের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন।

 

Share.

Leave A Reply