ভিন্ন ধরনের ‘সোশ্যাল মিডিয়া প্যারেড’ আয়োজন

0

ব্যবহারকারীদের সচেতন করে তুলতেই ভিন্ন ধরনের ‘সোশ্যাল মিডিয়া প্যারেড’ আয়োজন। মাধ্যমগুলোর ‘ভালো’ ও ইতিবাচক ব্যবহার বাড়াতে পারলেই সুস্থ সমাজ গঠন সম্ভব বলে বলেছেন তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

পলক বলেন, এখন ফেসবুক, টুইটার যেসব সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম আছে সেখানে এখন তরুণ-তরুণীসহ সব বয়সী মানুষ অংশ নিচ্ছে। এখন এটার যে ভালো দিকগুলো সেটি আরও কীভাবে অ্যাপ্লাই করা যায় তা এখান থেকে বলা হবে।

তাই এর একটা ভিন্নধর্মী নাম দেয়া হয়েছে জানিয়ে বলেন, এটার নাম সোশ্যাল মিডিয়া প্যারেড। যেখানে প্যারেডে অংশ নেবে তারাই। তারা সোশ্যাল মিডিয়ার ভালো দিকগুলো তুলে ধরবে।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারের সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কে তিন দিনব্যাপী ভার্চুয়াল আয়োজন ‘সোশ্যাল মিডিয়া প্যারেড’ উদ্বোধনীতে তিনি এসব কথা বলেন।

সোশ্যাল মিডিয়ার অপব্যবহার করে অনেকেই ফায়দা লুটতে চায় এবং সুযোগ খুঁজে জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী পলক বলেন, আমরা দেখি ধর্ম, বর্ণ-গোষ্ঠীকে অনেক উদ্দেশ্যমূলক, আক্রমণাত্মক, আমাদের নারীদের, কোনো ব্যক্তিকে, কোনো পরিবারকে, কোনো রাষ্ট্রকে উদ্দেশ করে অনেক সময় ধর্মীয় উসকানি দেয়া হচ্ছে। রামুর যে ঘটনাটি সেটাও একটি ধর্মীয় উসকানিমূলক বলে বলেন তিনি।

শুধু সচেতনতার অভাবেই অনেক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয়েছে জানিয়ে পলক বলেন, ধর্মীয় দাঙ্গা বাধার উপক্রম হয়েছে; দেখা গেছে যাকে নিয়ে ঘটনা সে কিন্তু কিছুই জানে না।

ক্রিকেটার নাসির এবং তার বোনকে নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়াতে ঘটে যাওয়া ন্যক্কারজনক ঘটনা উল্লেখ করে তিনি বলেন, যদি মানুষ এসব মাধ্যম ব্যবহারে যথেষ্ট সচেতন হতো তাহলে এমন অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা এড়ানো সম্ভব হতো।

যেহেতু গ্রাম-গঞ্জ-শহরে সোশ্যাল মিডিয়ার ব্যবহারকারী বাড়ছে। এ মুহূর্তে আড়াই কোটির বেশি ফেসবুক ব্যবহারকারী। আর টুইটারের ব্যবহার বাড়ছে। তাই তাদের সচেতন করতেই এমন আয়োজন বলে জানান পলক।

তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ মনে করে এসব ব্যবহারকারীকে সচেতন করা দরকার। তাই সচেতন করতে সেই সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মকেই বেছে নেয়া হয়েছে।

পরে প্রতিমন্ত্রী পলক, তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের অতিরিক্ত সচিব হারুন-অর-রশিদ, মাইক্রোসফট বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সোনিয়া বশির কবির এবং বিডিওএসএনের সাধারণ সম্পাদক এবং বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের কনসালটেন্ট মুনির হাসান একটি ফেসবুক লাইভে অংশ নিয়ে সামাজিক মাধ্যমগুলোকে আরও কীভাবে ইতিবাচক করা যায় তা আলোচনা করেন।

Share.

Leave A Reply