‘গ্রহণযোগ্য না এই পারফরম্যান্স’

0

এফএনএস: অ্যান্টিগায় স্মরণকালের সবচেয়ে বাজে ব্যাটিং করেছে বাংলাদেশ দল। দুঃস্বপ্নের ব্যাটিং সফরের শুরুতেই বড় লজ্জার পরাজয় বয়ে এনেছে। প্রথম ইনিংসে ৪৩ রানে অলআউট হয়েছিল বাংলাদেশ। যা এখন টেস্টে বাংলাদেশের সর্বনিম্ন স্কোর। দ্বিতীয় ইনিংসে বাংলাদেশ গুটিয়ে গেছে ১৪৪ রানে। ইনিংস ও ২১৯ রানের হারের ম্যাচে দলের পারফরম্যান্স গ্রহণযোগ্য নয় বলে জানিয়েছেন তামিম ইকবাল।

নিজেদের ভুল স্বীকার করে বাঁহাতি এই ওপেনার বলেছেন, এমন পারফরম্যান্সের জন্য কোনো অজুহাত খুঁজছে না দল। জ্যামাইকায় দ্বিতীয় টেস্টে ভালো ম্যাচ উপহার দিতে চেষ্টা করবে বাংলাদেশ।

অ্যান্টিগায় দলের ব্যাটিং বিপর্যয় নিয়ে তামিম বলেছেন, ‘আমাদের শেষ টেস্ট ম্যাচটা আপনাদের জন্য যেমন অতিশয় বেদনাদায়ক ছিল আমাদের জন্যও একইরকম ছিল। আমরা জানি যে, আমরা এর থেকে অনেক ভালো দল। আমরা আসলে যে ধরনের পারফরম্যান্স করেছি সেটা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য না।’

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দশ বছর কাটিয়ে দেওয়া চার-পাঁচজন ক্রিকেটার আছে বাংলাদেশ দলে। অথচ তারাও দলের বিপর্যয়ে হাল ধরতে ব্যর্থ। ব্যাট হাতে এমন বাজে পারফরম্যান্সের অজুহাত না খুঁজে নিজেদের ভুলটা মেনে নিচ্ছেন তামিম। অভিজ্ঞ এই বাঁহাতি ওপেনার বলেছেন, ‘যেই জিনিসটা দলের মধ্যে আছে, আমরা কোনোভাবেই অজুহাত খোঁজার চেষ্টা করছি না। আমরা জানি যে, আমাদের ভুলের কারণেই এই পারফরম্যান্সটা হয়েছে। আর এটা আশা করি আমরা সামনের টেস্ট ম্যাচে ভালো কিছু করার চেষ্টা করব।’

অমন জঘন্য পারফরম্যান্সের পর ক্রিকেটারদের আত্মবিশ্বাস তলানীতে চলে যায়। দল হিসেবে পারফর্ম করার মনোবল হারিয়ে যায়। তামিম বলছেন, এই সময় নিজেদের সামর্থ্যের উপর বিশ্বাস রাখাটা জরুরী। তিনি বলেছেন, ‘আমার জন্য এবং দলের জন্য সবথেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে- আমাদের বিশ্বাস রাখতে হবে নিজেদের ওপর যে, আমরা ভালো করতে পারি দলগত হিসেবে এবং ব্যক্তি হিসেবেও। আমরা বড় রান করতে পারি সেই বিশ্বাসও করতে হবে।’

অ্যান্টিগা টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে বাংলাদেশের পক্ষে প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে চার হাজার রানের মাইলফলক অতিক্রম করেছিলেন তামিম। যদিও ম্যাচের দুই ইনিংস মিলে তিনি ১৭ রান করেছিলেন। তার দৃষ্টিতে, নূরুল হাসান সোহান ও রুবেলের ব্যাটিংই প্রমাণ করে এমন কঠিন উইকেটেও চেষ্টা করলে রান করা সম্ভব। তামিম বলেছেন, ‘যদি শেষ ম্যাচে সোহান এবং লোয়ার অর্ডারে রুবেল যেভাবে করেছে এটা প্রমাণ করে যে, আপনি যদি পর্যাপ্ত সময় ব্যয় করেন উইকেটে যতই কঠিন উইকেট হোক না কেন আপনি রান করতে পারবেন।’

আগামী বৃহস্পতিবার জ্যামাইকার কিংস্টনে শুরু হবে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট। প্রথম টেস্টের ব্যর্থতা ভুলে ভালো ম্যাচ উপহার দিতে চান তামিম। তিনি বলেছেন, ‘জ্যামাইকায় আমাদের ১২ তারিখ থেকে টেস্ট শুরু হচ্ছে। আমাদের মধ্যে যে কেউ সুযোগ পায় তারই চেষ্টা থাকবে বড় স্কোর করার। এটা ভালো টেস্ট ম্যাচ খেলার এবং আপনাদের উপহার দেওয়ার চেষ্টা করব।’

Share.

Leave A Reply