পিএসজির বিপক্ষে লিভারপুলের রোমাঞ্চকর জয়

0

এফএনএস স্পোর্টস: চোখের সমস্যায় ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড রবের্তো ফিরমিনোর মাঠে নামা নিয়েই ছিল শঙ্কা। তবে শেষ দিকে নামলেন বদলি হিসেবে। পুরো ম্যাচ দাপটের সঙ্গে খেলেও পয়েন্ট হারাতে বসা দলকে দুর্দান্ত এক গোলে এনে দিলেন জয়। পিএসজিকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে দারুণ শুরু পেল লিভারপুল। অ্যানফিল্ডে গত মঙ্গলবার রাতে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের গ্রæপ পর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ৩-২ গোলে জিতেছে লিভারপুল। ড্যানিয়েল স্টারিজ ও জেমস মিলনারের গোলে ২-০ গোলে এগিয়ে যায় লিভারপুল। প্রথমার্ধে তমা মুনিয়ের গোলে ব্যবধ্স কমায় পিএসজি। দ্বিতীয়ার্ধে খেলার ধারার বিপরীতে কিলিয়ান এমবাপের গোলে ফেরায় সমতা। কিন্তু শেষরক্ষা হয়নি। পার্থক্য গড়ে দেন ফিরমিনো। ক্লাব ফুটবলের অন্যতম দুই সেরা আক্রমণভাগের লড়াইয়ের আগমুহূর্তটা লিভারপুল সমর্থকদের জন্য ছিল কিছুটা হতাশানজক। গত শনিবার লিগ ম্যাচে চোখে আঘাত পেয়ে শঙ্কায় থাকা ফিরমিনোকে ছাড়াই একাদশ সাজান কোচ ইয়ুর্গেন ক্লপ। তবে তাতে দলটির আক্রমণাত্মক খেলায় ছেদ পড়েনি। সপ্তম মিনিটেই এগিয়ে যেতে পারতো তারা; কিন্তু ডাচ ডিফেন্ডার ভার্জিল ভন ডাইকের ভলি দারুণ নৈপুণ্যে ঠেকিয়ে দেন ফরাসি গোলরক্ষক আলফুঁস আরিওলা। ফিরমিনোর চোটে সুযোগ পাওয়া স্টারিজের গোলে ৩০তম মিনিটে এগিয়ে যায় লিভারপুল। বাঁ দিক থেকে স্বদেশি ডিফেন্ডার অ্যান্ড্রু রবার্টসনের ক্রসে হেডে গোলরক্ষককে পরা¯Í করেন ইংলিশ ফরোয়ার্ড। ৩৬তম মিনিটে সফল স্পট কিকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন ইংলিশ মিডফিল্ডার মিলনার। ডাচ মিডফিল্ডার জর্জিনিয়ো ভেইনালডামকে পিএসজির ডিফেন্ডার হুয়ান বের্নাত অহেতুক ফাউল করলে পেনাল্টিটি পায় লিভারপুল।

৪০তম মিনিটে ব্যবধান কমিয়ে দলকে লড়াইয়ে ফেরান মুনিয়ে। বাঁ দিক থেকে ডি-বক্সে উড়ে আসা বল রবার্টসনের গায়ে লেগে অরক্ষিত বেলজিয়ান ডিফেন্ডার মুনিয়ের পায়ে গিয়ে পড়ে। জোরালো শটে জাল খুঁজে নেন তিনি। ৫৮তম মিনিটে গোলমুখে আলগা বল পেয়ে ফাঁকা জালে পাঠিয়েছিলেন মোহামেদ সালাহ। কিন্তু আগমুহূর্তে আরিওলাকে স্টারিজ ফাউল করায় গোল মেলেনি। চার মিনিট পর ছোট ডি-বক্সে সহজ একটি সুযোগ নষ্ট করেন স্টারিজ।

৭৪তম মিনিটে স্টারিজকে বসিয়ে ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড ফিরমিনোকে নামান কোচ। ৮২তম মিনিটে দুরূহ কোণ থেকে আরিওলার দুপায়ের ফাঁক দিয়ে সাদিও মানের শট পোস্ট ঘেঁষে চলে যায়। ওখান থেকে পাল্টা আক্রমণে খেলার ধারার বিপরীতে সমতায় ফেরে অতিথিরা। ৮৩তম মিনিটে সালাহর ভুলে বল পেয়ে দারুণ ক্ষিপ্রতায় এগিয়ে যাওয়া নেইমারকে চ্যালেঞ্জ জানায় এক ডিফেন্ডার। ডি-বক্সে বল পেয়ে যান এমবাপে। ডান পায়ের জোরালো শটে গোলরক্ষকেক পরা¯Í করেন ফরাসি ফরোয়ার্ড। এরপর ফিরমিনোর সেই দুর্দান্ত ফিনিশিং। যোগ করা সময়ের প্রথম মিনিটে ঠিকানা খুঁজে পান ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড। ভার্জিল ভন ডাইকের পাস পেয়ে ডি-বক্সে সামনে থাকা এক জনকে কাটিয়ে কোনাকুনি শটে বল ঠিকানায় পাঠান তিনি।   ‘সি’ গ্রæপের আরেক ম্যাচে সার্বিয়ার রেড স্টার বেলগ্রেডের মাঠে গোলশূন্য ড্র করেছে ইতালির নাপোলি।

‘এ’ গ্রæপে ফরাসি ক্লাব মোনাকোর মাঠে ২-১ গোলে জিতেছে আতলেতিকো মাদ্রিদ। ১৮তম মিনিটে সামুয়েলের গোলে পিছিয়ে পড়ার পর ৩১তম মিনিটে দিয়েগো ক¯Íার গোলে সমতায় ফেরে স্পেনের ক্লাবটি। আর প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে হোসে হিমেনেসের গোলে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে তারা। এই গ্রæপের অন্য ম্যাচে বেলজিয়ামের ক্লাব ব্রæজের মাঠে ১-০ গোলে জিতেছে জার্মান ক্লাব বরুসিয়া ডর্টমুন্ড। ‘ডি’ গ্রæপে ঘরের মাঠে রাশিয়ার লোকোমোতিভ মস্কোকে ৩-০ গোলে হারিয়েছে তুরস্কের গালাতাসারাই। অন্য ম্যাচে জার্মানির শালকের মাঠে ১-১ গোলে ড্র করেছে পর্তুগালের পোর্তো।

Share.

Leave A Reply