নারায়ণগঞ্জে শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষ, আহত অর্ধশত

0

এনএনবি : নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে বকেয়া বেতনের দাবিতে আন্দোলনরত একটি পোশাক কারখানার কর্মীরা পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়েছে।

গতকাল সোমবার সকালে আদমজী ইপিজেডের ‘সোয়াদ ফ্যাশনস’ এর শ্রমিকদের সঙ্গে এ সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশসহ অর্ধশতাধিক মানুষ আহত হয়েছে।

শ্রমিকদের অবরোধের কারণে সকাল ৯টা থেকে দুই ঘণ্টা নারায়ণগঞ্জ-আদমজী-ডেমরা সড়কে যান চলাচল বন্ধ থাকে। বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা এক কভার্ড ভ্যান আগুনে পুড়িয়ে দেয়।

নারায়ণগঞ্জ শিল্প পুলিশের সুপার জাহিদুর রহমান বলেন, বকেয়া বেতনের দাবিতে সকাল ৭টার দিকে সোয়াদ ফ্যাশনের শ্রমিকরা নারায়ণগঞ্জ-আদমজী-ডেমরা সড়ক অবরোধ করে। ঘণ্টাখানেক পর পুলিশ গিয়ে তাদের সড়ক থেকে সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে।

কিন্তু শ্রমিকরা রাস্তা না ছাড়ায় আরও এক ঘণ্টা পর পুলিশ লাঠিপেটা শুরু করে। শুরু হয় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, সংঘর্ষ।

জাহিদুর রহমান বলেন, বিক্ষোভকারীরা এ সময় একটি কভার্ডভ্যানে আগুন ধরিয়ে দেয় এবং ১০/১২টি গাড়ি ভাংচুর করে। প্রায় এক ঘণ্টা ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া চলার পর পুলিশ টিয়ার শেল ছুড়ে এবং লাঠিপেটা করে শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

পরে ঘটনাস্থল থেকে কয়েকজন শ্রমিককে আটক করা হয় জানিয়ে শিল্প পুলিশের সুপার বলেন, সংঘর্ষের ঘটনায় তিন পুলিশসহ অর্ধশত মানুষ আহত হয়েছেন।

এদিকে পোশাক শ্রমিকরা সকাল থেকে ইপিজেড গেইট সংলগ্ন আদমজী-ডেমরা-নারায়ণগঞ্জ সড়ক অবরোধ করে রাখায় সড়কের দুই পাশে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

শ্রমিকদের অভিযোগ, সোয়াদ ফ্যাশনসে কর্মরত তিন হাজার শ্রমিককে গত ৫-৬ মাস ধরে ঠিকমত বেতন পরিশোধ করছে না কর্তৃপক্ষ। এরই মধ্যে গত ২২ সেপ্টেম্বর বকেয়া বেতন পরিশোধের দাবিতে এবং শ্রমিকদের না জানিয়ে কারখানা বন্ধের নোটিস দেওয়ায় তারা বিক্ষুদ্ধ হয়ে রাস্তায় নেমে আসেন।

জাহিদুর রহমান বলেন, “সম্প্রতি গার্মেন্টটি বিক্রি করা হয়েছে। কুয়েতের একটি প্রতিষ্ঠান গার্মেন্টটি কিনে নিয়েছে। কিন্তু চুক্তি সম্পাদন না হওয়ায় শ্রমিকদের বেতন পরিশোধ করা সম্ভব হয়নি।”

কারখানা কর্তৃপক্ষ আগামী ২০ নভেম্বর শ্রমিকদের বকেয়া পরিশোধের ঘোষণা দিয়েছে বলে জানান তিনি।

Share.

Leave A Reply