পুলিশের গুলিতেই প্রাণ হারালেন দুয়ার্তের ‘সন্দেহভাজন তালিকা’য় থাকা পুলিশ কর্মকর্তা

0

এফএনএস ডেস্ক: ফিলিপাইনে মাদক বিরোধী অভিযান চলাকালে পুলিশের গুলিতে তাদেরই একজন কর্মকর্তা নিহত হয়েছেন। ক্ষমতায় আসার পর প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুয়ার্তে মাদক ব্যবসায় জড়িত ৬ হাজার সন্দেহভাজনের যে তালিকা করেছিলেন, তাতে নাম ছিল সান্তিয়াগো রাপিজ নামের ওই কর্মকর্তার। আগস্টে ফৌজদারি অপরাধে অভিযুক্ত এমনই কিছু পুলিশ সদস্যকে প্রাসাদে ডেকে দুয়ার্তে হুমকি দিয়েছিলেন, নতুন করে এদের কেউ আর একটি অপরাধ করলেও নিজের বিশেষ বাহিনী দিয়ে তাকে হত্যা করবেন। তবে মাদকবিরোধী অভিযানে সান্তিয়াগো রাপিজের নিহত হওয়ার ঘটনাকে ‘বন্দুকযুদ্ধ’ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে চাইছে ফিলিপাইন পুলিশ। একজন জেষ্ঠ্য কর্মকর্তা দাবি করেছেন, রাপিজ পুলিশ সদস্যদের ওপর গুলি চালালে সেই আক্রমণ প্রতিহত করতে গিয়েই তাকে গুলি করা হয়েছে। ২০১৬ সালে ফিলিপাইনি প্রেসিডেন্ট হিসেবে দুয়ার্তে দায়িত্বগ্রহণের পর মাদকবিরোধী যুদ্ধ ঘোষণা করা হয়। তৈরি করা হয়, ৬ হাজার সন্দেহভাজন মাদক কারবারির তালিকা। সেখানে নাম ছিল নিহত পুলিশ কর্মকর্তা সান্তিয়াগো রাপিজের। পুলিশের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাকে উদ্ধৃত করে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, দক্ষিণাঞ্চলীয় দিপোলগ শহরে দায়িত্বরত ছিলেন রাপিজ। পুলিশের দাবি, মাদকবিরোধী অভিযান চলাকালে তাকে ধাওয়া দেওয়ার পর তিনি গুলি পুলিশ সদস্যদের লক্ষ্য করে গুলি চালাতে শুরু করেন। আক্রমণ প্রতিহত করতে পুলিশ পাল্টা গুলি চালালে তিনি নিহত হন। এক সময় পুলিশ বাহিনীকে ‘গোঁড়া আর দুর্নীতিগ্রস্ত’ বলে উল্লেখ করেছিলেন দুয়ার্তে। তবে মাদকবিরোধী সংস্থার জনবলে ঘাটতি থাকায় শেষপর্যন্ত পুলিশদেরও মাদকবিরোধী অভিযানে যুক্ত করেছিলেন তিনি। তবে মাদকের বিরুদ্ধে অভিযানের পাশাপাশি জাতীয় পুলিশ বাহিনীর অভ্যন্তরেও কথিত শুদ্ধি অভিযান শুরু করেন দুয়ার্তে। গত আগস্টে দুর্নীতির অভিযোগ থাকা পুলিশ সদস্যদের একাংশকে প্রাসাদে ডেকে পাঠান তিনি। তাদের হুমকি দেন, তোমরা যদি না পাল্টাও (…) আমি তোমাদের খুন করব। তিনি সে সময় বলেন ‘আমার একটি বিশেষ ইউনিট আছে যা আপনাদের ওপর জীবনভর নজর রাখবে এবং যদি আপনারা সামান্য কোনও ভুলও করেন, তবে আমি তাদেরকে আপনাদের হত্যার নির্দেশ দেব।’ হুমকির ৩ মাসেরও কম সময়ের মধ্যে মাদক ব্যবসায়ের সন্দেহভাজন তালিকায় থাকা পুলিশ কর্মকর্তা তার নিজ বাহিনীর সদস্যদের গুলিতে প্রাণ হারালেন। যদিও পুলিশের দাবি, আক্রমণ প্রতিহত করতে গিয়েই তাকে  গুলি করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার পুলিশের কাউন্টার ইনটেলিজেন্সের প্রধান রোমিও কারামাত অভিযোগ করেন, গত সোমবার রাতে রাপিজ ৫০ হাজার পেসো (৯৪০ মার্কিন ডলার) সমমূল্যের ইয়াবা বিক্রি করেছেন। পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে রাপিজের মৃত্যু হয়েছে দাবি করে কারামাত বলেন, ‘শুরুতে তাকে সামান্য ধাওয়া দেওয়া হয়েছিল। তবে এক জায়গায় থেমে তিনি আমাদের সদস্যদের ওপর গুলি ছোড়েন।’ কারামাতের দাবি, মাদক স¤্রাটদের সুরক্ষা দেওয়া ও মাদক কারবারিতে জড়িত ছিলেন রাপিজ। আগস্টে দুর্নীতির অভিযোগ থাকা পুলিশ কর্মকর্তাদের যখন প্রাসাদে ডেকেছিলেন, দুয়ার্তে তখনই হুমকি দিয়ে রেখেছিলেন, দুর্নীতিগ্রস্ত পুলিশ কর্মকর্তারা হত্যাকা-ের শিকার হলে তাদের পরিবার থেকে যেন মানবাধিকারের দোহাই না দেওয়া হয়। রয়টার্স রাপিজের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করলেও তার মৃত্যু সম্পর্কে কোনও প্রতিক্রিয়া পায়নি।

উল্লেখ্য, বিশ্বজুড়েই বন্দুকভক্তির জন্য দুয়ার্তের পরিচিতি রয়েছে। ২০১৬ সালের মে মাসে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয় পাওয়ার আগে মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর হওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তিনি। ছয় বছর মেয়াদের পুরোটা সময় মাদকবিরোধী অভিযান অব্যাহত রাখার শপথ নিয়েছেন দুয়ার্তে। দায়িত্ব নেওয়ার পর ‘মাদকবিরোধী যুদ্ধ’ ঘোষণা করেন তিনি। তার দায়িত্বকালে ২০১৬ সালের জুলাই থেকে এ পর্যন্ত পুলিশের মাদকবিরোধী অভিযানে প্রায় ৫ হাজার মানুষ নিহত হয়েছে। বিচারবহির্ভূত এইসব হত্যাকা- নিয়ে প্রায়ই পরোক্ষ স্বীকারোক্তি দিতে দেখা যায় তাকে। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের তীব্র সমালোচনা উপেক্ষা করে তিনি বলে আসছেন, জেলে যাওয়ার জন্য তৈরি আছেন।

Share.

Leave A Reply