সুইপ দিবস ইংল্যান্ডের

0

এফএনএস স্পোর্টস:

ইংল্যান্ড: ২৯০ ও ৩২৪/৯

শ্রীলঙ্কা: ৩৩৬

ইংল্যান্ড ২৭৮ রানে এগিয়ে

জ্যারড কিম্বার নিজেও বোধ হয় বুঝতে পারেননি, কোন ফাঁদে পড়তে যাচ্ছেন। পাল্লেকেলে টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে সবে তিন উইকেট পড়েছে ইংল্যান্ডের। এর মাঝে ইনিংস উদ্বোধন করতে নামা নাইটওয়াচম্যান জ্যাক লিচও আছেন। তবু তিন ব্যাটসম্যানের আউটের ধরন নিয়ে টুইট করার লোভ সামলাতে পারেননি এই ক্রীড়া সাংবাদিক। এর জের পুরো দিন টেনেছেন। ওই এক বিষয়ে পুরো দিনই টুইটে ব্যস্ত থাকতে হয়েছে তাঁকে।

উপমহাদেশে সফরে এলেই অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড কিংবা দক্ষিণ আফ্রিকান ব্যাটসম্যানরা রান তোলার একটি অস্ত্রই খুঁজে পান, সুইপ। সামনের পা বাঁকিয়ে কোমর ঘুরিয়ে পিচ ঝেড়েই নিজেদের স্পিন খেলার সক্ষমতা প্রমাণ করেন তাঁরা। আজ দিনের শুরু থেকেই ইংলিশ ব্যাটসম্যানরা সুইপ করে গেছেন শ্রীলঙ্কান বোলারদের। তো, এই সুইপ করতে করতে যেমন রান পেয়েছেন, তেমনি আউটও হয়েছেন তাঁরা। লিচের পর জেনিংস ও বার্নসকে সুইপ করতে দেখে তাই আর লোভ সামলাতে পারেননি কিম্বার। অন্যরা তবু যেমন তেমন, জেনিংস তো আউট হয়েছেন রিভার্স সুইপ করতে গিয়ে।

সাংবাদিকের যন্ত্রণা বাড়াতেই হয়তো পাঁচে নামা বেন স্টোকসও চতুর্থ ব্যাটসম্যান হিসেবে সুইপ করতে গিয়ে আউট হলেন দ্বিতীয় বলে! জস বাটলারও বাদ যাবেন কেন? প্রথম ইনিংসে সুইপ করে করেই ফিফটি পাওয়া এই উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান এবার থেমেছেন ৩৪ রানে। আকিলা ধনঞ্জয়াকে রিভার্স সুইপ করতে গিয়ে বোল্ড বাটলার। সিরিজে নিজের ফর্ম ধরে রেখে (ব্যর্থতা) আরেকটি সুইপের শিকার মঈন আলী। ততক্ষণে টুইটারে উত্তেজনা, তবে কী ১০ জন ব্যাটসম্যানই সুইপ করতে গিয়ে আউট হতে যাচ্ছেন? হবে কি ক্রিকেটের আরেকটি অপ্রয়োজনীয় কিন্তু মুচমুচে কোনো রেকর্ড? জো রুট আশা বাড়িয়ে দিলেন।

শেষ সেশনের আধঘন্টা পেরোতেই আরেকটি সুইপ, এলবিডব্লু  রুট। আউট হওয়া সাত ব্যাটসম্যানের সাতজনই আউট হয়েছেন সুইপ খেলতে গিয়ে। কী হয়, কী হয় উত্তেজনা। দাঁতের ক্ষণিকের জন্য নেইল কাটারের চাকরিপ্রাপ্তি ঘটার অবস্থা। এত আগ্রহে জল ঢেলে দিলেন স্যাম কুরান! প্রথম ইনিংসের অন্য পঞ্চাশের মালিক কিনা প্রথম বলেই আউট। সেটা সুইপ করার চেষ্টা করলেও মেনে নেওয়া যেত। কিন্তু ব্যাকফুটে রক্ষণাত্মক খেলতে গিয়ে আউট! সাধারণত সুইপ, রিভার্স সুইপের জন্য বিশ্বস্ত আদিল রশিদ কিনা এ দিনেই আউট হলেন রক্ষণাত্মক খেলতে গিয়ে। ব্যাটে বল লাগার পরও এলবিডব্লু  হয়ে ফিরলেন রশিদ। দুই রিভিউ যে বার্নস আর স্টোকস নিয়ে বসে আছেন সুইপ করে আউট হয়ে।

৪ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে অলআউট হতে বসেছিল ইংল্যান্ড। কিন্তু বেন ফোকস জেমস অ্যান্ডারসনকে নিয়ে আরেকটু লম্বা করতেই বৃষ্টিও হাত বাড়িয়ে দিল সাহায্যের। ৯ উইকেটে ৩২৪ রান নিয়ে দিন শেষ হলো ইংল্যান্ডের। এরই মাঝে ২৭৮ রানে এগিয়ে গেছে ইংল্যান্ড। কারণ, সুইপের মিছিলে দ্রুত রান তোলার কাজটা ভালোভাবেই সামলেছে ইংল্যান্ড। ক্যারিয়ারের প্রথম ফিফটি পাওয়া বার্নসের ৫৯ রানের ইনিংসটি ছিল ৬৬ বলের। বাটলারের ৩৪ রান এসেছে ৪৫ বলে। একমাত্র ব্যতিক্রম ফোকসই শুধু দিনের শেষ বলে (বৃষ্টি নামায়) ছক্কা মেরে ফিফটি ছুঁয়েছেন ১০২ বলে।

এসবেও অবশ্য লাভ হতো না। যদি না রুট অতটা আত্মবিশ্বাসী ইতিবাচক এক ইনিংস খেলতেন। হ্যাঁ, দলের আর সবার মতোই সুইপ করেছেন, তবে সেই সঙ্গে অন্যান্য ফাঁকে বল পাঠিয়ে দ্রুত সিঙ্গেল বের করায়ও মন ছিল রুটের। এতেই ক্যারিয়ারের ১৫তম সেঞ্চুরিটা এত দ্রুত (১২০) পেয়েছেন। ১০ চার ও ২ ছক্কার ১২৪ রানের ইনিংসটা স্থায়ী হয়েছে মাত্র ১৪৬ বল। ইংলিশ অধিনায়কের মতোই দারুণ দিন কাটিয়েছেন বোলিং অ্যাকশন নিয়ে সন্দেহের মুখে পড়া আকিলা ধনঞ্জয়া। ১০৬ রানে ৬ উইকেট এই অফ স্পিনারের।

Share.

Leave A Reply