ইমার্জিং দল নিরাপত্তার নিশ্চয়তা নিয়ে পাকিস্তানে

0

এফএনএস স্পোর্টস: এই পাকিস্তানে ক্রিকেট দল পাঠানো নিয়ে অনেক পানি ঘোলা হয়েছে। অবশেষে জাতীয় দল না হলেও কাছাকাছি শক্তির একটি বাংলাদেশ দল গতকাল পাকিস্তান রওনা হয়ে গেলো। ইমার্জিং এশিয়া কাপে অংশ নিতে পাকিস্তানে গেলো বাংলাদেশের দলটি। নুরুল হাসান সোহানের অধিনায়কত্বে এই টুর্নামেন্টে অংশ নেবে বাংলাদেশ দল।

টুর্নামেন্টের সূচি অনুযায়ী ৬ ডিসেম্বর করাচিতে আরব আমিরাতের বিরুদ্ধে প্রথম ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। টুর্নামেন্টে টেস্ট দলগুলোর অনূর্ধ্ব-২৩ দল ও আইসিসি সহযোগী দেশগুলোর জাতীয় দল অংশ নিয়ে থাকে। তবে টেস্ট খেলুড়ে দেশগুলো চারজন সিনিয়র ক্রিকেটার দলে নিতে পারবে।

২০১৭ সালে ইমার্জিং এশিয়া কাপের সর্বশেষ আসর অনুষ্ঠিত হয়েছিল বাংলাদেশে। সেই আসরে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল শ্রীলঙ্কা। এই সফরে দল নিয়ে ম্যানেজার হিসেবে প্রথম সফরে যাচ্ছেন খালেদ মাসুদ পাইলট। তিনি দেশ ছাড়ার আগে বলেছেন, পাকিস্তানী কর্তৃপক্ষ তাদের উচ্চ পর্যায়ের নিরাপত্তার নিশ্চয়তা দিয়েছেন বলেই তারা যাচ্ছেন।

পাইলট বলছিলেন, ‘এটা ম্যানেজার হিসেবে আমার প্রথম সফর। আমি কখনোই এই পর্যায়ে কাজ করিনি। আমি ঘরোয়া স্তরে কাজ করেছি। বিপিএলেও ম্যানেজার হিসেবে কাজ করেছি। কিন্তু জাতীয় কোনো দলের সাথে এটা আমার প্রথম দায়িত্ব। আমি যতোদূর জানি, পাকিস্তানে আমাদেরকে উচ্চ পর্যায়ের ও ভালো নিরাপত্তা দেওয়া হবে। আশা করি ওখানে আর কোনো ঘটনা ঘটবে না। খেলোয়াড়দের সেভাবেই সব জানানো হয়েছে। দেশ থেকে যাওয়ার আগে আমরা একটা মিটিংয়ে বসবো। সেখানে আমাদের বলা হবে, কী করা যাবে এবং কী করা যাবে না।’

সাধারণত কোনো সফরে গেলে খেলোয়াড়রা ঘুরে বেড়ানোর একটু সুযোগ পান। একজন সাবেক খেলোয়াড় হিসেবে পাইলট বলছিলেন, সেটা এবার খেলোয়াড়রা মিস করবেন, ‘আমরা ওখানে ¯্রফে একটা টুর্নামেন্ট খেলতে যাচ্ছি। সাধারণত কোনো বাইরের সফরে গেলে ক্রিকেট খেলার পাশাপাশি আমরা তাদের সংস্কৃতি, ঐতিহ্য দেখার একটা সুযোগ পাই। এইবার আমরা সেই সুযোগ পাবো না। আমরা ওখানে খেলতে যাচ্ছি। শুধু খেলারই সুযোগ পাবো।’

পাকিস্তানের নিরাপত্তা পরিস্থিতি নিয়ে ভয় পাইলটেরও আছে। তবে তিনি বলছিলেন, তারা যথেষ্ট নিশ্চয়তা পেয়েছেন নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে, ‘সত্যি বলি, পাকিস্তানের অনেক ঘটনাই আমরা শুনেছি। তাতে ভয় পাওয়ারই কথা। কিন্তু এইবার আমাদেরকে বলা হয়েছে পাকিস্তানী কর্তৃপক্ষ আমাদের জন্য উচ্চ পর্যায়ের একটা নিরাপত্তা ব্যবস্থা করছে। পাকিস্তানী যেসব খেলোয়াড় বিপিএল বা ঢাকা লিগ খেলতে আসে, তারাও বলেছে, ‘ওসব ঘটনা সব জায়গায় ঘটছে না।’

Share.

Leave A Reply