যুক্তরাষ্ট্র ক্ষেপণাস্ত্র কেনার পরিকল্পনা দ. কোরিয়ার

0

এফএনএস আন্তর্জাতিক ডেস্ক : দীর্ঘদিনের বৈরি প্রতিবেশি উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার উদ্যোগ নিলেও তাদের বিরুদ্ধে আকাশ প্রতিরক্ষা শক্তিশালী করতে চায় দক্ষিণ কোরিয়া। গতকাল শুক্রবার সিউলের অস্ত্র ক্রয় সংস্থা ৩০ কোটি ডলারের বিনিময়ে এসব ক্ষেপণাস্ত্র কেনার পরিকল্পনার কথা জানিয়েছে। চুক্তির লক্ষ্য হলো ভারী অস্ত্রে সজ্জিত দুই দেশের সীমান্তে সামরিক উত্তেজনা কমিয়ে আনা। ২০১৩ সাল থেকে ধাপে ধাপে যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ অস্ত্র নির্মাতা প্রতিষ্ঠান রায়থিয়ন কর্পোরশেন নির্মিত জাহাজ থেকে নিক্ষেপণযোগ্য স্টান্ডার্ড মিসাইল-২এস কিনছে দক্ষিণ কোরিয়া। এসব ক্ষেপণাস্ত্রে সজ্জিত তিনটি যুদ্ধজাহাজ ২০২০ সালের মাঝামাঝি মোতায়েনের প্রস্তুতি রয়েছে সিউলের। ক্ষেপণাস্ত্র কেনার সাম্প্রতিক এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটির একটি প্রতিরক্ষা অধিগ্রহণ প্যানেল। এর মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র থেকে চূড়ান্ত ব্যাচের অস্ত্র সরবরাহের পথ উন্মুক্ত হলো বলে জানিয়েছেন দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিরক্ষা অধিগ্রহণ কর্মসূচি প্রশাসনের (ডিএপিএ) এক কর্মকর্তা। নিরাপত্তাজনিত উদ্বেগ থেকে কিনতে চাওয়া ক্ষেপণাস্ত্রের সংখ্যা না জানালেও ওই কর্মকর্তা বলেছেন, এটা কয়েক ডজন হতে পারে। মোট মূল্য হতে পারে প্রায় ৩০ কোটি ৪০ লাখ মার্কিন ডলার। প্রকাশ্যে কথা বলার অনুমতি না থাকায় নিজের নাম প্রকাশ করতে চাননি ওই কর্মকর্তা। দক্ষিণ কোরিয়ার লক্ষ্য হলো উত্তর কোরিয়া থেকে আসা ক্ষেপণাস্ত্র সনাক্ত এবং তার গতিপথ পর্যবেক্ষণের সক্ষমতা অর্জন করা। তবে উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক কর্মসূচির চূড়ান্ত লক্ষ্য যুক্তরাষ্ট্র। আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞাকে অবজ্ঞা করে এই কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার হুমকি দিয়ে থাকে তারা। দীর্ঘদিন পর চলতি বছর দুই প্রতিবেশি নিজেদের বিভেদ দূর করতে উদ্যোগী হওয়ার পর সেপ্টেম্বরে উত্তর কোরিয়ার রাজধানী পিয়ংইয়ং-এ একটি বিস্তৃত সামরিক চুক্তির বিষয়ে একমত হয় তারা। তবে আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা পুনর্গঠন অব্যাহত রেখেছে দক্ষিণ কোরিয়া। অগ্রিম সংকেত পেতে গত মাসে দুটি ইসরায়েলি রাডার কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সিউল। সেপ্টেম্বরে দক্ষিণ কোরিয়ার কাছে ২৬০ কোটি ডলারের সামরিক সরঞ্জামের সম্ভাব্য  বিক্রির অনুমোদন দিয়েছে মার্কিন পররাষ্ট্র দফতর। অনুমোদন দেওয়া এসব সরঞ্জামের মধ্যে রয়েছে বোয়িং নির্মিত সমুদ্র পর্যবেক্ষণকারী ছয়টি পি-৮এ পোসেইডন বিমান ও লকহেড মার্টিন নির্মিত ৬৪টি প্যাট্রিয়ট অ্যান্টি-ব্যালেস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র।

Share.

Leave A Reply