নতুনরূপে ফিরছেন নাবিলা

0

এফএনএস বিনোদন: বিয়ে আর হানিমুনের আনন্দময় সময় কাটিয়ে তিন মাস পর আবার অভিনয়ে ফিরেছেন ‘আয়নাবাজি’ খ্যাত নায়িকা মাসুমা রহমান নাবিলা। তবে চলচ্চিত্রে নয়, অভিনয় করেছেন নাটকে। সম্প্রতি মিজানুর রহমান আরিয়ানের ‘মন মন্দিরে’ শিরোনামের একটি নাটকে তিনি অভিনয় করেন। এটিতে তার বিপরীতে আছেন অভিনেতা মনোজ প্রামাণিক।

এই নাটক নিয়ে নাবিলা বলেন, আমি খুব বেশি নাটকে অভিনয় করি না। এই নাটকের গল্পটি পড়ে ভালো লেগেছে। এ ছাড়া আরিয়ানের নাটকে বরাবরই ভিন্নতা থাকে। নাটকের গল্পে ভালোবাসায় ধমীর্য় একটা ক্রাইসিস সুন্দরভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। গল্পটিতে নতুনত্ব আছে বলেই অভিনয় করেছি।

এ নাটকে নাবিলা অভিনয় করেছেন শ্রুতি চরিত্রে। অভিনেতা মনোজের সঙ্গেও নাবিলার এটি দ্বিতীয় কাজ। তারা দুজন প্রথম একসঙ্গে অভিনয় করেন ‘কথা হবে তো’ শিরোনামের একটি নাটকে। এর আগে এই অভিনেত্রী মিজানুর রহমান আরিয়ানের ‘সংসার’ শিরোনামের একটি নাটকে অভিনয় করেছেন। সেটিও দশের্কর কাছে বেশ প্রশংসিত হয়েছে।

২০০৬-এ টিভি উপস্থাপনার মাধ্যমে তিনি কমর্জীবন শুরু করেন নাবিলা। উপস্থাপনা, মডেলিং, টিভি নাটকের পাশাপাশি তিনি তার প্রথম চলচ্চিত্র আয়নাবাজিতে অভিনয়ের মাধ্যমে ব্যাপক দশর্কপ্রিয়তা অজর্ন করেছেন। তবে খুব কম নাটকে তাকে দেখা যায়। বছরে হাতেগোনা কয়েকটি নাটকে অভিনয় করেন। উপস্থাপনায় একটু বেশি সময় দেন। বতর্মানে বিভিন্ন করপোরেট অনুষ্ঠান ও টিভি অনুষ্ঠানে উপস্থাপনা করেন। তিনি বলেন, আমি উপস্থাপনায় ইনজয় করি। খুব ভালো লাগে উপস্থাপনা করতে। অভিনয় করলেও তা সংখ্যায় খুবই কম।

আয়নাবাজির পর নতুন কোনো চলচ্চিত্রে দেখা যায়নি। এ নিয়ে তিনি বলেন, আয়নাবাজির মতো সিনেমার কোনো প্রস্তাব পেলে তাতে অভিনয় করতে সমস্যা নেই।

২৬ এপ্রিল দুই পরিবারের সম্মতিক্রমেই ১৮ বছরের পরিচিত জোবাইদুল হক রিমের সঙ্গে নতুন জীবনে পা রাখেন নাবিলা। এর আগে ২৩ এপ্রিল রাজধানীর গুলশানের একটি কনভেনশন সেন্টারে গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। নাবিলা ও জোবাইদুল হক একে অপরের শৈশবের বন্ধু। ছোটবেলায় একই স্কুলে পড়তেন তারা। নাবিলার জীবনের একটা বড় অংশ কেটেছে সৌদি আরবে। বাবার চাকরির সুবাদে নাবিলা ১৫ বছর সেখানে ছিলেন। সেখানেই তাদের পরিচয় হয়েছিল।

বিয়ের পর নতুন জীবন নিয়ে এ অভিনেত্রী বলেন, আমাদের পরিচয় দীঘির্দনের। তাই বোঝাপড়াটাও ভালো। সংসারজীবন খুব ভালো চলছে। সবার কাছে দোয়া চাই যেন আমাদের দাম্পত্য জীবন সুখের হয়। একটি বছর বিদায়ের ঘণ্টা বাজিয়ে দুয়ারে কড়া নাড়ছে আরেকটি নতুন বছর। নতুন বছরের প্রত্যাশা নিয়ে নাবিলা বলেন, গেল বছরটি আমার জীবনে স্মরণীয় হয়ে থাকবে। কারণ এ বছরেই বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছি। আর নতুন বছরে নতুন উদ্যমে কাজ করতে চাই।

Share.

Leave A Reply