চ্যাম্পিয়নদের প্রথম জয় দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে

0

এফএনএস স্পোর্টস: রবি বোপারার সঙ্গে শতরানের জুটিতে রংপুর রাইডার্সকে লড়াইয়ের পুঁজি এনে দিলেন রাইলি রুশো। রান তাড়ায় ঝড়ো ব্যাটিংয়ে খুলনা টাইটানসকে উড়ন্ত সূচনা এনে দিলেন পল স্টার্লিং। তবে শেষের দিকে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে তাদের হারিয়ে দিল মাশরাফি বিন মুর্তজার দল।

মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে রোববারের দ্বিতীয় ম্যাচে ৮ রানে জিতেছে রংপুর। ১৬৯ রান তাড়ায় খুলনা থেমেছে ১৬১ রানে।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি রংপুরের। পাকিস্তানে জন্ম নেওয়া যুক্তরাষ্ট্রের পেসার আলি খানকে উড়ানোর চেষ্টায় সীমানায় ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান মেহেদী মারুফ।

বেশিক্ষণ টিকেননি অ্যালেক্স হেলস। একটি করে ছক্কা-চারে ৯ বলে ১৫ রান করা ইংলিশ বাঁহাতি ব্যাটসম্যানকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেন চায়নাম্যান জহির খান। রুশোকে কিছুটা সঙ্গ দেওয়া মোহাম্মদ মিঠুন ফিরেন বাজে শটে।

৬৫ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়া রংপুরকে পথ দেখান রুশো-বোপারা। জুটির শুরুতে সাবধানী ছিলেন দুই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান। শেষের দিকে বোলারদের ওপর চড়াও হয়ে দলকে এনে দেন লড়াইয়ের পুঁজি।

নিজের সাবেক দলের বিপক্ষে প্রথম ৩৮ বলে ৪২ রান করেন রুশো। এবারই প্রথম বিপিএলে খেলতে আসা আলিকে পরপর দুটি ছক্কা হাঁকিয়ে ৪০ বলে তুলে নেন ফিফটি। দক্ষিণ আফ্রিকার বাঁহাতি ওপেনার শেষ পর্যন্ত ৫২ বলে ৮ চার ও দুই ছক্কায় অপরাজিত থাকেন ৭৬ রানে।

অবিচ্ছিন্ন চতুর্থ উইকেটে রুশোর সঙ্গে ৬১ বলে ১০৪ রানের জুটি উপহার দেওয়া বোপারা করেন ৪০ রান। ইংলিশ এই অলরাউন্ডারের ২৯ বলের ইনিংস গড়া তিন চার আর এক ছক্কায়।

চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্য তাড়ায় জুনায়েদ সিদ্দিকের সঙ্গে ৯০ উদ্বোধনী জুটিতে খুলনাকে উড়ন্ত সূচনা এনে দেন আইরিশ ওপেনার স্টার্লিং। ৩০ বলে ৩৩ রান করা জুনায়েদকে ফিরিয়ে ১১.১ ওভার স্থায়ী শুরুর জুটি ভাঙেন বেনি হাওয়েল।

নিজের প্রথম ওভারে ১৯ রান দেওয়া শফিউল ইসলাম বোল্ড করে দ্রুত ফেরান তরুণ বাঁহাতি টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান নাজমুল হোসেন শান্তকে। ২০১৩ সালের পর প্রথমবারের মতো বিপিএলে খেলতে আসা স্টার্লিংকে স্লোয়ারে বোল্ড করে থামান মাশরাফি। মারকুটে ওপেনার ৪৬ বলে ৮ চার ও ১ ছক্কায় করেন ৬১ রান।

১৮ রানের মধ্যে তিন উইকেট হারিয়ে চাপে পড়া খুলনাকে পথ দেখাতে পারেননি মাহমুদউল্লাহ, আরিফুল হক ও কার্লোস ব্র্যাথওয়েট। তিন ফিনিশারই ব্যর্থ দারুণ শুরু পাওয়া দলকে জয় এনে দিতে।

শিশিরের জন্য খুব সমস্যা হচ্ছিল রংপুরের বোলারদের। একটু পর রুমাল দিয়ে মুছে দিতে হচ্ছিল ভেজা বল। স্পিনারদের পরের দিকে আর বোলিংয়েই আনতে পারেননি মাশরাফি। পেসাররা দারুণভাবে সামাল দেন পরিস্থিতি। নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে অকার্যকর করে রাখেন মাহমুদউল্লাহ-আরিফুল-ব্র্যাথওয়েটদের।

বোলারদের মিলিতে প্রচেষ্টায় রোমাঞ্চকর ম্যাচে দারুণ জয় তুলে নেয় হার দিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করা রংপুর। দলকে লড়াইয়ের পুঁজি এনে দেওয়া রুশো তার দায়িত্বশীল ইনিংসের জন্য জেতেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

রংপুর রাইডার্স: ২০ ওভারে ১৬৯/৩ (রুশো ৭৬*, মারুফ ৫, হেলস ১৫, মিঠুন ১৯, বোপারা ৪০*; তাইজুল ৩-০-১৮-০, আলি ৪-১-৩৫-১, শরিফুল ৪-০-৩০-০, জহির ৪-০-৩০-১, ব্র্যাথওয়েট ৪-০-৩৯-১, মাহমুদউল্লাহ ১-০-৬-০)

খুলনা টাইটানস: ২০ ওভারে ১৬১/৫ (স্টার্লিং ৬১, জুনায়েদ ৩৩, শান্ত ১, মাহমুদউল্লাহ ২৪, আরিফুল ১২, ব্র্যাথওয়েট ৬*, জহুরুল ১২*; মাশরাফি ৪-০-৩৫-১, সোহাগ ৩-০-২১-০, শফিউল ৪-০-৪৪-২, অপু ২-০-১২-০, রেজা ৪-০-২৮-১, হাওয়েল ৩-০-১৯-১)

ফল: রংপুর রাইডার্স ৮ রানে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: রাইলি রুশো

Share.

Leave A Reply