শীতের তীব্রতায় জবুথবু দরিদ্র মানুষ আটঘরিয়ায়

0

আটঘরিয়া প্রতিনিধি ; আটঘরিয়া উপজেলায় বেশ কয়েক দিন ধরে শীতের প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় জন জীবন দূর্ভোগে নেমে এসেছে শিশু ও বয়স্কদের মাঝে। তীব্র শীত আর ঘন কুয়াশার কারণে ভোগান্তিতে পড়েছে এই উপজেলার নিরিহ সাধারন ছিন্নমুলের মানুষ। উত্তরে ঘন কুয়াশা সহ হাড় কাপানো শীতের জবুথবু হয়ে পড়েছে উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়ন ও একটি পৌর সভার হতদরিদ্র মানুষ।

কয়েক দিন ধরে উত্তর অঞ্চলে শৈত প্রবাহ শুরু হয়েছে। ফলে শৈত্য প্রবাহের কারনে তাপমাত্রা কমছে। শৈত প্রবাহের কারনে এক সপ্তাহ ধরে পাবনা জেলার বিভিন্ন উপজেলা সহ আটঘরিয়া উপজেলার আশপাশের এলাকার সন্ধার পর থেকে তীব্র শীত অনুভতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। শীতের সঙ্গে বইছে উত্তরের হিমেল হাওয়া আর ধোয়ার মত ঘন কুয়াশা। সকালের দিকে সূর্যের দেখা মিললেও শীতের তীব্রতা কমছে না বলে মনে করছেন ভূক্তভোগিরা। আটঘরিয়া, দেবোত্তর, সড়াসাড়িয়া, খিদিরপুর, পারখিদিরপুর, চাঁদভা, শ্রীকান্তপুর, কয়রাবাড়ী, একদন্ত , লক্ষীপুর সহ বিভিন্ন গ্রামে কনকনে শীতে জনজীবন জবুথবু হয়ে পড়ছে। আটঘরিয়া পৌর সভার দেবোত্তর এলাকার শাহজাহান আলী  বলেন, তিনি একজন দিনমুজুর। মাঠে কাজ করে সংসার চালান সে। শীতের তীব্রতা বেড়ে যাওয়ায় কয়েক দিন ধরে কাজে যেতে পারছে না। দেবোত্তর এলাকার আক্তারুজ্জামান জানান, মনে হচ্ছে শীতের শরীর ভেঙ্গে যাচ্ছে। এজন্য গত কাল ও পড়শু থেকে কাজে যেতে পারিনি। এদিকে শীতের তীব্রতার বেড়ার কারনে বয়স্ক এবং শিশুদের ঠান্ডা জনিত রোগের প্রকোপ দেখা দিয়েছে। প্রতিদিন আটঘরিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্ের  শ্বাসকষ্ট ও সর্দি কাশির রোগি চিকিৎসা নিতে আসছে। আটঘরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্েরর কর্মকর্তা, তীব্র শীতের কারনে হাসপাতালে শ্বাসকষ্ট ও সর্দি কাশির রোগি বেশি আসছে। তবে চিকিৎসা নিয়ে তারা ফিরে যাচ্ছে।

Share.

Leave A Reply